শব্দ ও কথার উৎপত্তি

শ্যাম রাখি না কুল রাখি কথাটির উৎপত্তি

শ্যাম রাখি না কুল রাখি একটি বহুল প্রচলিত বাগ্‌ধারা। চলুন জেনে নিই এর পেছনের ইতিহাস। শ্যাম হচ্ছে শ্রীকৃষ্ণের আরেক নাম। রাধা-কৃষ্ণের প্রণয়ের কাহিনি শোনেননি এমন মানুষ বোধ হয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। প্রেমের ইতিহাসে তাঁরা যে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন তা চিরদিন বেঁচে থাকার যোগ্য।

প্রথমদিকে কৃষ্ণ রাধার জন্যে কাতর থাকতেন। রাধার চিন্তায় হয়ে উঠতেন অধীর, ছন্নছাড়া। কিন্তু প্রথমে তিনি রাধার থেকে উপেক্ষা ছাড়া আর কিছুই পাননি। কিছুদিন পরেই ঘটনা পালটে যায়। যে রাধা তাঁকে উপেক্ষা করেছিলেন সেই রাধা-ই তাঁর জন্যে অধীর হওয়া শুরু করেছেন।

কিন্তু উপেক্ষা সহ্য করতে করতে কৃষ্ণের তৃষ্ণার মাত্রা কিছুটা কমে যায়। কিন্তু তখন অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, রাধা কৃষ্ণকে ছাড়া বাঁচবেনই না।
কিন্তু রাধা ও কৃষ্ণের সামাজিক যে মামি-ভাগ্নের সম্পর্ক, সেখানে মিলন হওয়া ছিল প্রায় অসম্ভব।

রাধার ছিল কুল (জাত) যাওয়ার ভয়, কারণ সে ছিল অন্যের স্ত্রী। তিনি যদি কৃষ্ণকে পেতে চান তাহলে তাঁর জাত বা কুল যাবে। আবার কৃষ্ণকে তিনি হারাতে চান না, কারণ তখন কৃষ্ণকে ছাড়া তাঁর বেঁচে থাকা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠেছিল।

রাধা না পারছিলেন কৃষ্ণের কাছে নিজেকে সঁপে দিতে, কারণ কৃষ্ণ তাঁকে ঠিক আগের মতো ভালোবাসেন না। আবার সেটা সম্ভব হলেও লোকলজ্জা, জাত যাওয়ার চিন্তা। তিনি কোনটাকে বেছে নেবেন! কারণ তাঁর কাছে কোনোটাকেই ছেড়ে দেওয়া সম্ভব ছিল না।

এই দোটানা অবস্থা থেকেই শ্যাম রাখি না কুল রাখি কথাটির উৎপত্তি। কেউ যখন দুটো বিকল্পের মধ্যে একটাকে বাদ দিয়ে আরেকটাকে গ্রহণ করতে পারেন না তখন সাধারণত শ্যাম রাখি না কুল রাখি কথাটি ব্যবহার করা হয়।

ভূতের মুখে রামনাম | প্রশ্নোত্তর

সম্পূর্ণ দেখুন

ফারহান সাদিক শাহীন

পরিচালক, প্রমিত বাংলা চর্চা | শিক্ষার্থী (স্নাতক), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্য করুন

Back to top button
Close